তাজমহলের ২২টি বন্ধ দরজার পিছনে লুকানো আসল রহস্য।

কিছু লোকের ধরনা তাজমহল শিবমন্দির এবং এর আসল নাম তেজ মহালয়া ।প্রথম মতবাদ অনুসারে,মোঘল বাদশা শাহজাহান তাজমহল তৈরি করেনি।বানিয়েছেন রাজা পরমারদ্রি দেব ১৩ শতকে। পরবর্তী সময়ে সম্রাট শাহজাহান কিনেছিলেন রাজা মানসিংহের নাতি জয়সিংহের কাছ থেকে।দ্বিতীয় মতবাদ অনুসারে,শাজাহান তাজমহল বানানোর পর নিযুক্ত ২০  হাজার শ্রমিকের হাত কেটে দিয়েছিলেন কারণ সেই কর্মী যাতে অন্য কোন এরকম সৌধ বানাতে না পারে।এই মতবাদ ছিল ১৭ শতকে। এখন প্রশ্ন হলো১৩  শতক ও ১৭  শতকের মধ্যে ৪৫০ বছরের পর বানিয়েছে এরকম হতে পারে না সত্যি ঘটনা। তাই আমরা জানবো সত্যিটা কি? সেই ২২ বন্ধ দরজা গুলির রহস্য।

Taj Mahal
Taj Mahal

শাহজাহান জন্মগ্রহণ করেন ৫ই জানুয়ারি ১৫৯২ সালে।তার আসল নাম খুররাম। পরবর্তী সময়ে তার নাম দেওয়া হয় কিং অফ দা ওয়ার্ল্ড। তার বাবা ছিলেন মোহাম্মদ সেলিম জাহাঙ্গীর আর মাতা ছিলেন জগৎ গোসাইন। এবং মমতাজ জন্মগ্রহণ করেন ২৭এপ্রিল১৫৯৩ সালে। মমতাজের আসল নাম আরজুমান্দ বানু বেগম। তাদের বিবাহ হয়েছিল ১৬১২ সালে। শাহজাহানের আরোও স্ত্রী ছিল কিন্তু শাজাহান ভালবাসতেন মমতাজকে। ১৭ ই জুন ১৬৩১ সালে মমতাজের চতুর্দশ সন্তান গৌহর বেগমের জন্ম দিতে গিয়ে মৃত্যুবরণ করেছিলেন। তার মৃত্যুর পর শাহজাহান গভীরভাবে শোকাহত হয়ে পড়েছিলেন। শাহজাহানের মতে তার স্ত্রী মমতাজের সমাধি তাজমহল বানানোর জন্য প্রস্তুতি শুরু করেন। শুধু মার্বেল পাথর নয় দেশ-বিদেশের বিভিন্ন কোণ থেকে রত্ন এনে তাজমহলকে সাজিয়ে তোলেন।২২ হাজার শ্রমিক প্রতিদিন কাজ করে মোট ২২ বছর পর তাজমহল পূর্ণরূপ পায়। কিন্তু সম্প্রীতি কিছু খবর আসে বিজিপি রাজনৈতিক নেতা রাজনীশ সিং এলাহাবাদ হাইকোর্ট এ অভিযোগ করেন তাজমহলের ২২ বন্ধ দরজা খোলার জন্য যে, সেখানে হিন্দু ভাস্কর্য কিংবা শিলালিপি আছে কিনা তা খতিয়ে দেখা। পরবর্তীতে এ.এস.আই(Archaeological Survey of India)পরীক্ষা করে দেখেন সেই ঘর গুলিতে কিছু নেই এবং পর্যটকদের দেখার মত কিছু না থাকায় সেগুলি বন্ধ রয়েছে। তারপর এই পিটিশন বিচারপতি সম্পূর্ন বন্ধ করে দেন। কিছু কিছু খবর মাধ্যম বেশি সম্প্রচার করলে পরবর্তী সময়ে এ.এস.আই(Archaeological Survey of India)বন্ধ ঘরের তাদের নিজস্ব তোলা ছবিগুলো দেখাতে বাধ্য হয়। পূর্ববর্তী সময়েওনানান  অভিযোগ করা হয় তাজমহলের ভিতরে শিব মন্দির রয়েছে।তবে এটা ভিত্তিহীন বলে বিবেচিত ।