এই কোম্পানীর CEO-র মাসিক বেতন মাত্র ১ ডলার, তা সত্বেও কিভাবে এত ধনী জেনে নিন

আপনি অনেক সময় হয়তো খবরে, ভিডিওতে কিংবা অন্য কোথাও শুনেছেন বা পড়েছেন যে গুগল, ফেসবুক, টেশলা কিংবা টুইটার CEO (Chief Executive Officer) জ্যাক Dorsey (Ex)  নিজেদের মাসিক বেতন হিসেবে মাত্র এক ডলার অর্থ নেন। হয়তো অনেকে ভাবছেন বাহঃ কি সুন্দর ! কোম্পানীর লাভ হচ্ছে এতে! কিন্তু কখনো কি লক্ষ্য করেছেন যে এত কম টাকা নেওয়া সত্বেও এদের সম্পত্তির কোন কূলকিনারা নেই কেন?

আসুন জেনে নেই এর পিছনের আসল রহস্য। সত্যিটা হল এইসব CEO-রা এই এক ডলার মূল্যের বেতন নেন নিজেদের ব্যক্তিগত লাভের কারণয়েই । যদি নিজেরা নিজেদেরকে কোটি কোটি মূল্যের বেতন দেন তাহলে সেই টাকা থেকে অনেক টাকা সরকারের হাতে চলে যাবে ইনকাম ট্যাক্স এর আকারে। কিন্তু এর পরিবর্তে যদি নিজেকে এক ডলার বেতন দিয়ে কোম্পানীর শেয়ার বিক্রি করে টাকা উপার্জন করেন তাহলে সেখানে তাদের কে Capital Gains Tax দিতে হবে যা ইনকাম ট্যাক্স এর তুলনায় অনেক কম। সুতরাং নিজেকে এক ডলার বেতন দিয়ে সবচেয়ে প্রধান যে সুবিধা লাভ করা যায় সেটা হল ইনকাম ট্যাক্স থেকে মুক্তি পাওয়া। এছাড়াও আর একটি সুবিধা হল, যদি একটি কোম্পানীতে সেই কোম্পানীর CEO-র শেয়ার বেশি থাকে তাহলে Investor রা ইনভেস্ট করতে সাহস পেয়ে যায়। কারণ যেহেতু কোম্পানীর CEO নিজেই এতটা পরিমাণ শেয়ার রেখেছে নিজের কোম্পানী তে তাহলে কিছু বুঝেশুনেই রেখেছে এই ধারণা জন্মে ইনভেস্টর দের মনে।

এখন অনেকে ভাবতেই পারেন, CEO রা এক ডলার এর পরিবর্তে শূন্য ডলার বেতন নেন না কেন?

এর পিছনে একটি আইনগত কারণ আছে। ইউনাইটেড স্টেটস অফ আমেরিকার আইন এইভাবেই নির্মিত হয়েছে। যা হল, আপনাকে কোন কোম্পানীর CEO থাকতে গেলে একটা নূন্যতম পরিমাণের বেতন নিতে হবে না নিলে আপনি সেই কোম্পানীর CEO থাকতে পারবেন না।