ব্লুটূথ সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য জেনে নিন, কিভাবে ব্লুটূথ কাজ করে

পূর্বেকার দিনে ডেভিসে তার ছাড়া বা wireless eডুলিকে এর ব্যবস্থা ছিলনা। সেগুলিকে হস্ত চলিত করতে হত এবং সংযোগ ছিল তার যুক্ত। সেই সময়ে তার হিন ডেভিস ছিলনা ।

আজকের দিনে স্মার্ট ডিভাইস আরা সবাই ব্যবহার করি । বেশির ভাগ ডিভাইস এ আমরা 1 টা সংযোগ আমরা লক্ষ্য করি টা হল ব্লুটূথ (Bluetooth)।তো bluetooth কিভাবে কাজ করে আজকে আমার সেই বিষয়টি জানবো।Bluetooth

Bluetooth কিভাবে কাজ করে :

আজকের দিনে আমরা যদি 1 টা স্পীকার কিনি সেটাও ওয়ারলেস খুজি, 1 টা হেড ফোন কিনলেও সেটা ওয়ারলেস বা বেতার নেবার চেষ্টা করি।

যখন দুটি স্মার্ট device  এর মধ্যে বেতার সংযোগ হয় সেই যোগাযোগ টা ওয়েভ (Wave) বা তরঙ্গের মাধ্যমে হয়।  প্রতিটা যোগাযোগ এর জন্য আলাদা আলাদা ফ্রিকুয়েন্সীর ওয়েভ বা তরঙ্গ ব্যবহার হয়।Bluetooth ওয়েভ

2G কম্যুনিকেশন এর জন্য আলাদা ফ্রিকুয়েন্সী (800 MHZ,1800 MHZ ), 3G কম্যুনিকেশন এর জন্য আলাদা ফ্রিকুয়েন্সী (900 MHZ, 2100 MHZ) ,4G কম্যুনিকেশন এর জন্য আলাদা ফ্রিকুয়েন্সী (800 MHZ ,1800 MHZ ,2600 MHZ )এবং 5G কম্যুনিকেশন এর জন্য আলাদা ফ্রিকুয়েন্সী ব্যবহার হয় ।

সেরকমই Bluetooth কম্যুনিকেশন এর জন্য আলাদা ফ্রিকুয়েন্সী  (frequency ) আছে। Bluetooth এর জন্য যে ফ্রিকুয়েন্সী (frequency ) ব্যবহার করা হয় তা হল 2.40 GHz থেকে 2.485 MHz । এই frequency তে bluetooth কাজ করে। এই ব্যান্ড কে বলা হয় ISM (ISM যার সম্পূর্ণ কথা হল ইনডাস্ট্রিয়াল সাযেন্টি৞িক মেডিকেল ব্যান্ড )।

আমরা যদি 1 টি মোবাইলকে একটি স্পীকার এর সঙ্গে কানেক্ট বা সংযোগ করেন তো 2.40 GHz থেকে 2.485 MHz এর মধ্যে একটা ফ্রিকুয়েন্সী বের হয় যেটা ঐ স্পীকার কাছে যায় , তার ফলে আমরা ব্লুটূথ স্পীকার এ আমার গান শুনতে পারি।

একাধিক ডিভাইস এর মধ্যে দুটি ডিভাইস কি করে সক্রিয় থাকে :

Bluetooth

2 টি ডিভাইস কানেক্ট থাকা কালীন সেখানে যদি আর এক শত ডিভাইস থাকে তাহলেও তার সেই ফ্রিকুয়েন্সী টা অন্য ডিভাইস ধরতে পারেন। কখনো ভেবেছেন এমন টা কেন?

bluetooth মাত্র 80 থেকে 85 টা ফ্রিকুয়েন্সীর ওয়েভ বা তরঙ্গ কে ব্যবহার করে। এই ব্লুটূথ যোগাযোগএর মধ্যে একটি আলাদা প্রযুক্তি ব্যবহার হয়। যখন 2 টি ডিভাইস কানেক্ট হয় তাদের মধ্যে  যে ফ্রিকুয়েন্সী ইউজ হয় তা 1 সেকেন্ড এর মধ্যে 1600 বার পরিবর্তন হয়।